Latest Post

Coincidence Or Pattern? 1720 Plague, 1820 Cholera Outbreak & 1920 Bubonic Plague

PANDEMIC OUTBREAKS – Amidst the escalating outbreak of the new coronavirus from Wuhan, China, some netizens believe that plagues throughout history starting from the 1720 plague, holds a pattern.
However, did history truly repeat itself? The theory goes like this:
1720 – The Great Plague of Marseille – this was the last significant European outbreak of the bubonic plague. It killed a total of 100,000 people in the city of Marseille, France.
The Great Plague of Marseille
1820 – The First Cholera Pandemic – By 1820, cholera had spread to Thailand, Indonesia, and the Philippines. On the island of Java alone, the outbreak caused the death of 100,000 people.
The First Cholera Pandemic
1920 – The Spanish Flu – In 1918-1920, the world was faced with the influenza pandemic. It would be the first of two pandemics to involve the H1N1 influenza virus.
The Spanish Flu
The virus had a massive reach, infecting 500 million people around the world. According to Wikipedia, the death toll worldwide was up to 100 million, making it one of the deadliest in human history.
So what is going to happen in 2020? It seemed like the pattern for deadly pandemic outbreaks occurs every 100 years.
In Wuhan, China, an outbreak of a new deadly strain of coronavirus was running rampant. In a matter of days, the number of infected tripled and the death toll continued to rise.
The Novel Coronavirus or known as the Wuhan coronavirus is still being studied. Health authorities are on a race to contain the virus and ordered Wuhan to suspend all outbound public transport.
The Novel Coronavirus
What’s common between the outbreaks?
Though some of the circumstances of the outbreaks are different, one of the most common variables is how the outbreaks were spread – infected animals and bacteria.
The bubonic plague was spread by infected fleas carried by small animals. It could also be transmitted through exposure to the body fluids from a dead plague-infected animal.
The cholera outbreak was caused by the Vibrio cholerae bacteria found in somewhat salty and warm waters. Humans get infected after drinking liquids or eating foods contaminated with the bacteria.
Meanwhile, the Spanish Flu was caused by an unusually deadly strain of “avian influenza” or bird flu.
The Novel Coronavirus was also believed to have been caused by consuming an infected animal bought from a seafood market in Wuhan, China.
What’s more concerning is that the Chinese New Year holidays are about to begin. During this time, millions of Chinese travel both domestically and internationally increasing the risks of spreading the virus.
However, the World Health Organization (WHO) had yet to declare the virus as a “public health emergency of international concern”. This could merit a coordinated global response to containing the virus.

In 1720 plague, 1820 cholera outbreak, 1920 Spanish Flu, 2020 Chinese coronavirus-What is happening.


In 1720 Plague, 1820 Cholera, 1920 Spanish Flu, 2020 Chinese coronavirus. What’s happening? published in world media on January 25, 2020, February 18, 2020. It seems that once in 100 years the world is devastated by a pandemic. The last recent pandemics we can mention are the following: In the year 1720 plague, in the year 1820 cholera outbreak and the most recent pandemic was the Spanish flu of 1920. The researchers said that all of these pandemics we mentioned above have exactly the same pattern as the coronavirus outbreak in China. However, the precision with which these pandemics occur at exactly 100 years of age makes us think better about this topic. Are these pandemics somehow artificially created by a malicious organisation? In 1720 there was a deadly pandemic of bubonic plague. It started in Marseille and was later called “The Great Plague of Marseille.” The researchers estimated the number of deaths as 100,000. In 1820 the first cholera pandemic occurred, somewhere in Asia. Among the affected countries, we can list Indonesia, Thailand and the Philippines. And this pandemic has killed about the same number of people. About 100,000 officially registered deaths. The main reason for the infection is the consumption of water from lakes infested with this killer bacterium. In 1920 one of the most unrelenting pandemics occurred. This is the Spanish flu that has infected about half a billion people and killed 100 million. The Spanish flu holds the official record for the deadliest pandemic officially recorded in history. It is now 2020. At the 100th anniversary of the Spanish Influenza, humanity is facing a new potential pandemic called coronavirus. Although the Chinese authorities were reluctant to make official statements and appealed for calm, the situation deteriorated rapidly.



মেরিলিন আহমেদ

দেশে বসেই বিদেশের চার প্রতিষ্ঠান সামলাচ্ছেন তিনি। আয়ের অঙ্ক শুনলে যে কারও চোখ কপালে উঠে যাবে। অনলাইনের একটি মার্কেটপ্লেস থেকেই তাঁর মাসে গড়ে দুই লাখ টাকা আয় হয়। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অনলাইন মার্কেটপ্লেস আপওয়ার্কে শীর্ষ আয়ের তালিকায় জ্বলজ্বল করছে তাঁর নাম। তিনি বাংলাদেশি তরুণী মেরিলিন আহমেদ। ফ্রিল্যান্সিংয়ে বাংলাদেশের মেয়েদের অনেকখানি এগিয়ে যাওয়ার বার্তা বহন করছেন মেরিলিন।
দেশে বসেই বিদেশের চারটি প্রতিষ্ঠানের জন্য কর্মী নিয়োগ দেওয়া, মানবসম্পদ বিভাগ দেখাসহ প্রতিষ্ঠানের গুরুদায়িত্ব পালন করছেন মেরিলিন আহমেদ। ফ্রান্সের একটি কোম্পানি তাঁকে সে দেশে চলে যেতে বললেও তিনি দেশেই গড়ে তুলতে চাইছেন মানবসম্পদ নিয়ে কাজ করে এমন একটি প্রতিষ্ঠান। ফ্রিল্যান্সিং জীবন নিয়ে সম্প্রতি তাঁর সঙ্গে কথা হয় প্রথম আলোর।
ব্যবসা ও চাকরির পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিংয়ে যুক্ত থাকলেও মেরিলিন আহমেদ নিজেকে পুরোপুরি ফ্রিল্যান্সার হিসেবেই পরিচয় দেন। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ, এমবিএ ও পরবর্তী সময়ে মানবসম্পদ–বিষয়ক ডিপ্লোমা পিজিডিএইচআর করে দেশের কয়েকটি নামকরা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেছেন।
সামলেছেন দেশের বড় বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগের দায়িত্ব। কিন্তু চাকরির বাঁধাধরা সময় তাঁর পছন্দ হয়নি বলে বেছে নেন ফ্রিল্যান্সিং পেশাটাকে। কারণ, এখানে নিজের স্বাধীন সময়মতো কাজ করার সুবিধা আছে। এর বাইরে নিজের সুবিধাজনক সময়কে চাকরির জন্য বেছে নিয়েছেন। গত এক বছর দেশের ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির পিজিডিএইচআর কোর্স পড়াচ্ছেন। সঙ্গে নিজের ব্যবসা শুরু করে আয়ের পরিধিটুকু বাড়িয়ে নিতে পেরেছেন বহু গুণ। একসঙ্গে এখন তিন ধরনের কাজ সামলাচ্ছেন মেরিলিন।
মেরিলিন জানালেন, ফ্রিল্যান্সিং জগতে তিনি প্রধানত মানবসম্পদ ব্যবস্থাপক ও প্রকল্প পরামর্শক হিসেবে কাজ করেন। বাংলাদেশ থেকে এ ধরনের ফ্রিল্যান্সার হাতে গোনা। তিনি আপওয়ার্কের শীর্ষ আয়ের ফ্রিল্যান্সারদের একজন। সরকারের কাছ থেকেও স্বীকৃতি পেয়েছেন। তাঁকে এখন ফ্রান্সের ২৫০ জনের বেশি কর্মী আছে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগ দেখতে হয়। সেখানে ১৮টিরও বেশি দেশের লোক একসঙ্গে যাঁর যাঁর দেশ থেকে কাজ করছেন।
এর বাইরে আরও তিনটি প্রতিষ্ঠানের হয়ে খণ্ডকালীন কাজ করছেন মেরিলিন। বিভিন্ন দেশের কর্মীদের নিয়োগ দিতে সাক্ষাৎকার নেওয়া, প্রতিষ্ঠানের জন্য দরকারি কর্মী সংগ্রহ, কর্মীদের ছুটি, বেতন ও নীতিমালা তৈরিসহ নানা বিষয় তাঁকে দেখতে হয়। মেরিলিন জানালেন, গত তিন বছরে তিনি অনলাইনে নিয়োগ দিয়েছেন ৪৫০ জনেরও বেশি আন্তর্জাতিক ফ্রিল্যান্স কর্মীকে।
ওই চারটি প্রতিষ্ঠানের জন্য তাঁর কাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তারা তাঁর ওপর ভরসা করেন। সরাসরি তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এ কারণে তাঁদের সময়ের সঙ্গে মিলিয়ে কাজ করতে হয়। পুরো কাজ করতে হয় অনলাইনে। সময়ের ব্যবধানের সুবিধা হিসেবে তিনি ইউরোপীয় গ্রাহকদের সঙ্গেই কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।
যেভাবে ফ্রিল্যান্সিংয়ে এলেন
জবাবে মেরিলিন জানান, ব্যবসায় প্রশাসন বিষয়ে পড়াশোনা করে ফ্রিল্যান্সিংয়ে আসার ইচ্ছে কখনো ছিল না। সে সময় ফ্রিল্যান্সিংয়ের প্রসার ও প্রভাব সম্বন্ধে জানাও ছিল না। তবে করপোরেট চাকরি করতে করতে ক্লান্ত হয়ে বিকল্প চিন্তা করছিলেন। চাকরি ছেড়ে তখনই এ পথে আসা। তবে শুরুটা মোটেও সহজ ছিল না। তিনি মার্কেটপ্লেসগুলো নিয়মিত ঘেঁটেছেন। কাজ খুঁজেছেন। অনেকের মতোই ডেটা এন্ট্রি, লেখালেখির মতো কাজগুলো পেতে আবেদন শুরু করেন। সেটা ২০১৩ সালের দিকে।
এরপর প্রথম কাজ পেতেই ছয় মাস সময় লাগে। তিনি ধৈর্য হারাননি। প্রথম কাজ সফলভাবে শেষ করার পর আরও কয়েকটি কাজ করেন। কিন্তু তিনি যে বিষয়ে দক্ষ, সে বিষয়টিতে কাজ পাচ্ছিলেন না। এর মধ্যে শুরু করেন নিজের প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসা। সেই ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে ও আয় বাড়াতে ফ্রিল্যান্সিংকে গুরুত্ব দিতে শুরু করেন। একসময় কাজ পেয়ে যান এক বিদেশি গ্রাহকের, যার সঙ্গে পরে অনলাইনের বাইরেও নিজের মানবসম্পদবিষয়ক পরামর্শ ব্যবসা শুরু করেন তিনি।
মেরিলিন থাকেন রাজধানীর বনশ্রীতে। তাঁর কার্যালয় পান্থপথে। বাবা–মায়ের বড় সন্তান তিনি। ছোট দুই ভাই আছেন, যাঁরা তাঁদের আপন পেশার ক্ষেত্রে সফল। প্রকৌশলী বাবা ও গৃহ ব্যবস্থাপক মায়ের সান্নিধ্যে মেরিলিনের ছোটবেলা কেটেছে লিবিয়ায়। সেখানে বাংলা মাধ্যমে পড়েছেন। ১০ বছর বয়সে দেশে চলে আসেন। এরপর থেকে তিনি দেশের প্রচলিত মাধ্যমে পড়েছেন। এখন তিনি মানবসম্পদ–বিষয়ক পরামর্শ, নিয়োগ ও নীতিমালা তৈরির কাজগুলো করছেন। আর অবসর মুহূর্তগুলো আজকাল তিনি বিদেশ ভ্রমণ করে কাটান।
কীভাবে এত সব সামলাচ্ছেন? এর জবাবে হেসে মেরিলিন বললেন, সবাই জয়টা দেখতে পায়। পেছনের কঠোর অধ্যবসায়, নিদ্রাহীন রাত, অশেষ ধৈর্য আর সুচিন্তিত পদক্ষেপগুলো কেউ দেখতে পায় না। তাঁর জয়ের মন্ত্র একটাই—নিজের সবচেয়ে ভালোটা দেওয়া। টাকার দিকে চেয়ে নয়; বরং মন দিয়ে পরিশ্রমের মাধ্যমে সাফল্য পেয়েছেন। নিজেকে প্রমাণে নিজের সিদ্ধান্তই প্রয়োগ করতে হবে—এই তাড়নাটুকুও টেনে নিয়ে এসেছে অনেকখানি।
মেরিলিন জানান, ফ্রিল্যান্সিংকে পেশা হিসেবে বেছে নিতে পরিবারের দিক থেকে সমর্থন পেয়েছেন তিনি। তবে বড় প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছেড়ে দেওয়ার জন্য শুনতে হয়েছে তির্যক মন্তব্য। শুরুতে বাবা–মায়ের কিছুটা আপত্তি থাকলেও পরে তাঁরা পাশে দাঁড়িয়েছেন। শুরুতে ফ্রিল্যান্সিংয়ে নিজেকে মানিয়ে নিতেও কিছুটা সময়ের দরকার হয়েছে। কী করে ভালো ক্লায়েন্ট পাওয়া যায়, তা নিয়ে রীতিমতো গবেষণা করতে হয়েছে। আন্তর্জাতিক মানের সেবা দিতে এখনো নিজেকে প্রতিনিয়ত তৈরি করে যাচ্ছেন। নতুন নতুন দক্ষতা অর্জন করতে হচ্ছে। শিখতে হচ্ছে।
নতুনদের জন্য পরামর্শ
নতুন যাঁরা ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আসতে চান, তাঁদের জন্য ভাষাগত কোনো বাধা দেখেন না মেরিলিন। তাঁর মতে, কাজ শিখে পেশাদার মনোভাব নিয়ে এগোলে সফল হওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে গুগল, ইউটিউবসহ নানা শেখার উপকরণ রয়েছে। আগে শিখতে হবে, চর্চা করতে হবে। এরপর মেন্টরিং। ফ্রিল্যান্সিং পেশায় কেউ কাউকে কাজ দিতে পারে না। নিজের কাজ নিজের যোগ্যতায় আদায় করতে হয়। একজন ভালো মেন্টর অবশ্য কাজে আসতে পারে। তবে নিজের বস নিজেকেই হতে হবে।
মেরিলিন বলেন, যাঁরা সন্তান জন্মের পর চাকরি ছেড়ে বসে থাকেন, তাঁরা এ পেশায় আসতে পারেন। এ ছাড়া ঘরে বসে থাকার চেয়ে কাজ শেখাকে গুরুত্ব দেন তিনি। বলেন, বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আগে দক্ষতা বাড়াতে হবে। আজকাল ফ্রিল্যান্সিংয়ের ওপর ভালো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা সরকারি ও বেসরকারি, দুই পর্যায়েই আছে।
অনেকে ইউটিউব, ফেসবুকেও টিউটোরিয়াল দিয়ে থাকেন। পাশাপাশি বইও পাওয়া যায় প্রচুর। আর কিছু না হোক, নিজে থেকে অনলাইন সার্চ করেও জেনে নেওয়া যায় প্রাথমিক অনেক তথ্য। এরপর কাজে নামতে পারেন। শুরুতেই কাজের আশা না করে, নিজের যোগ্যতা বুঝে এগোতে হবে। রাতারাতি সাফল্য আসে না।
মেরিলিনের মতে, ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা আছে। ঢালাওভাবে ফ্রিল্যান্সিং সবার জন্য—এ ধারণাটা ভুল। আবার যাঁদের দেশীয় বাজারে কাজ নেই, ফ্রিল্যান্সিং তাঁদের জন্য, সেই ধারণাও ভুল। তবে আন্তর্জাতিক মার্কেটপ্লেসে কাজ করার দক্ষতা থাকলে কারও ভাবাভাবির দিকে না চেয়ে কাজ শুরু করে দেওয়া উচিত।
তিনি বলেন, কাজ যেন চাইতে না হয়, কাজই যেন আপনাকে খুঁজে নেয়, সেভাবে এগোতে হবে। এ লক্ষ্যেই নিজের একটি আন্তর্জাতিক মানের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখছেন বলে জানালেন। সূত্রঃ প্রথম আলো।

৮০৮ বছর পর এলো চোখ ধাঁধানো তারিখ

আজকের তারিখটার মধ্যে চোখ ধাঁধানো বিষয় লুকিয়ে আছে, খেয়াল করেছেন কি? আজকের তারিখে শুধু মাত্র দু’টি সংখ্যা। সম্পূর্ণ তারিখটি লিখতে হলে দুটি সংখ্যাই চার বার ব্যবহার করতে হবে।

২০-০২-২০২০; ‘মাস/দিন/বছর’ বা ‘দিন/মাস/বছর’—তারিখটি যেভাবেই লেখেন না কেন ‘২’ ও ‘০’ চার বার লিখতে হবে। প্যালিনড্রোম বছরে এ পদ্ধতি ছাড়া এমন তারিখ আগে এসেছিল ৮০৮ বছর আগে। সেটি ছিল- ২১-১২-১২১২। তবে গতানুগতিক হিসেবে গত এক হাজার বছরে কয়েকবার এসেছে এমন তারিখ। যেমন- ০২-০২-২০২০, ১২-১২-১২১২, ১১-১১-১১১১ ও ১০-১০-১০১০।

বলতে পারেন, এ মাসেরই আরেকটি তারিখ ‘০২-০২-২০২০’ তেও সংখ্যা দুটি চার বার করে। এ তারিখটি প্যালিনড্রোম, আজকেরটি সাধারণ। শব্দ বা সংখ্যা নিয়ে বিভিন্ন শব্দের খেলা যারা খেলে থাকেন, তারা প্যালিনড্রোম নামটির সঙ্গে পরিচিত। প্যালিনড্রোম মানে হল যে শব্দকে সামনে থেকে বা পেছন থেকে পড়লে শব্দের উচ্চারণ আর অৰ্থের কোন বদল হয় না। এ জাতীয় প্যালিনড্রোমের শেষ তারিখটি ছিল ১১-১১-১১১১; প্রায় ৯০০ বছর আগে। কিন্তু আজকের তারিখটি সাধারণ।

সাধারণ সংখ্যার মধ্যে এমন চোখ ধাঁধানো তারিখ খুব কমই আসে। আপনি জীবনে অনেক জায়গা খাওয়া-দাওয়া সব টাকা-পয়সা বারবার ঘুরে ফিরে আসবে। কিন্তু এমন তারিখ হয়তো আর কখনো ঘুরে আসবে না। এ দিনটি আপনার জীবনে হয়ে থাকুক অবিস্মরণীয়।

#webbourn #sisangram #mashikbazaar #digitalbangladesh #informationtechnology #specialdate #20022020 

বিং এসইও (Bing SEO), ১১টি গুরুত্বপূর্ণ বিং রাঙ্কিং ফ্যাক্টর


সার্চ ইঞ্জিন কথাটি বললেই আমাদের প্রথমে যে নামটি মনে আসে সেটি হচ্ছে Google, কারন আমদের দেশে একমাত্র সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে আমরা এই সার্চ জায়ান্টকেই বুঝি। কিন্তু আমরা যারা আমেরিকা (USA) এর অডিয়েন্সকে টার্গেট করে কাজ করে তাদের কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন Bing এর কথা ভুললে চলবে না। কারন, যুক্তরাষ্ট্রের ২৩% অডিয়েন্স Bing সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে।

তাই আমরা যারা SEO এর কাজ করে থাকি, তাদের টার্গেটেড দেশ যদি যুক্তরাষ্ট্র হয় তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে জানতে হবে কিভাবে সার্চ ইঞ্জিন Bing এ র‌্যাংক পাওয়া যায়। আজকের আমার আলোচনার বিষয় এটিই, Bing SEO.

কোনো ওয়েবসাইটের এসইও এর কথা বললেই আমাদের মাথায় চলে আসে কিভাবে সাইটটিকে গুগলে র‌্যাংক করানো যায়। তাই আসি আজকের আলোচনাটা একটু ভিন্ন দিকে নিয়ে যাচ্ছি, কিভাবে Bing সার্চ ইঞ্জিন এ র‌্যাংক করা যায়?

আলোচনা শুরুর আগেই বলে নেই আপনারা যারা গুগল র‌্যাংকিং বিষয়ক লেখা আমার আগের আর্টিকেলটি (গুগল র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর ২০১৯) পড়েছেন, সেখানে উল্লেখিত অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলি আমি এখানে আবার আলোচনা করছি না। তবে গুরুত্বপূর্ন Bing Ranking Factors গুলি নিয়ে আমি এখানে বলবো।



একনজরে Bing সার্চ ইঞ্জিন
Bing রিলিজ হয় ১লা জুন ২০০৯
মালিক: মাইক্রোসফট
যুক্তরাষ্ট্রের ভিজিটর ২৩%
ইউনিক গ্লোবাল ভিজিটর: ১.২৩ বিলিয়ন ( ফেব্রুয়ারী-জুলাই ২০১৮)
৩৬% অডিয়েন্স ২৫-৪৪ বছর পর্যন্ত, ২০% অডিয়েন্স ৪৫-৫৫ বছর
Bing Visual Search খুব শীঘ্রই স্মার্ট ফোন দিয়ে তোলা একটি ছবি থেকে টেক্সট পড়তে পারবে। এছাড়াও আরো যে সুবিধা গুলি থাকেছ, যেমন: ছবি থেকে মোবাইল নাম্বার বা ই-মেইল বা লিংক পড়তে পারবে।

Bing Visual Search একটি ম্যাথ ইকুয়েশন সমস্যাকে স্টেপ বাই স্টেপ সমাধান করতে পারবে।
তো আমরা বুঝতে পারছি যে, বিং নিজেকে আরো উন্নত করছে যাতে করে এর জনপ্রিয়তা আরো বৃদ্ধি পায়। তাহলে আমাদের কেও Bing SEO নিয়ে ভাবা উচিত।

Bing এর ভিজিটর আমাদের জন্য কতটা প্রয়োজন?
একটি জরিপে দেখা গেছে যে, গুগল এর থেকে বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ভিজিটরদের কনভার্সন রেট তুলনা মূলক ভাবে বেশী এবং বাউন্স রেট তুলনা মূলক ভাবে কম।

এর থেকে আমরা কি বুঝতে পারি? আমরা কি তাহলে এটি ধরে নিতে পারি যে বিং এর ইউজাররা একটু বেশী ম্যাচিউর গুগল এর থেকে।

এখন তাহলে আপনি নিশ্চয়ই Bing সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য SEO করতে আগ্রহী হবেন।

আর এখন যে কথাটি বলবো সেটি শুনলে অবশ্যই আপনার আগ্রহ আরো বেড়ে যাবে, সেটি হচ্ছে গুগলের চেয়ে বিং এ র‌্যাংকিং কম্পিটিশন তুলনা মূলক কম।

Bing এর ফ্রী টুলস এবং রিসোর্স
Bing Webmaster Tools (https://www.bing.com/toolbox/webmaster)
Bing Webmaster Guideline (https://www.bing.com/webmaster/help/webmaster-guidelines-30fba23a)
Bing SEO Analyzer (https://www.bing.com/toolbox/seo-analyzer)

Bing এর গুরুত্বপূর্ন কিছু র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর
আসুন আমরা দেখে নেই বিং সার্চ ইঞ্জিন এ র‌্যাংকিং এর জন্য কি কি বিষয়ে সবচেয়ে বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

ইউজার এনগেজমেন্ট: এটি বিং এর অন্যতম একটি র‌্যাংকিং সিগনাল। আপনার সাইটের ইউজার এনগেজমেন্ট যতো ভালো, আপনার সাইটটি বিং এ ততো ভালো পজিশনে র‌্যাংক করবে।
CTR (Click Through Rate): আপনার সাইটটি বিং সার্চ ইঞ্জিন এ কতটা ভালো পারফর্মেন্স করে। অর্থাৎ, মনে করুন বিং সার্চ রেজাল্ট পেজে ১# পজিশনে থাকা সাইটি ২৫% ক্লিক পায় এবং ২# পজিশনে থাকা সাইটটি ৪৮% ক্লিক পায়, তাহলে আপনি বুঝতেই পারছেন যে, এখানে ২# পজিশনে থাকা সাইটটির CTR ভালো। এখানে প্রশ্ন করতে পারেন কেন ২# পজিশনে থাকা সাইটটি বেশী ক্লিক পাবে? হতে পারে এই সাইটটি তার টাইটেল এবং মেটা ডেসক্রিপশনে ভালো ভাবে তার কী-ওয়ার্ড প্লেস করেছে।

সোশ্যাল সিগনাল: জ্বি হ্যা, আপনি ঠিকই দেখছেন, সোশ্যাল সিগন্যাল একটি গুরুত্বপূর্ন র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর বিং সার্চ ইঞ্জিন এ। এখানে আপনি একটি পোষ্টকে যত বেশী সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করবেন, তত পোষ্টটির ক্ষমতা বাড়বে র‌্যাংকিং পাবার।

ব্যাকলিংক: যদিও বা গুগল এর মত বিং সার্চ ইঞ্জিন এ ব্যকলিংক কে এতটা গুরুত্ব দেয়া হয় না, জ্বি এটা সত্যি। আপনি গুগল এবং বিং এর রেজাল্ট পেজ তুলনা করলে দেখতে পাবেন যে, বিং এ যে সাইটটি র‌্যাংক করছে সেটির ব্যাকলিংক তুলনা মূলক কম।

ইনবাউন্ড লিংক: এখানে আপনার নিজের পেজের ভিতরে ইন্টারনাল লিংকগুলিকে বিং অনেক বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে। তাই আমাদের উচিত একটি পেজে রেলেভেন্সি বজায় রেখে যত বেশী সম্ভব ইন্টারনাল লিংক করা। তাহলে সকল পেজের মধ্যে লিংক জুস (Link Juice) ফ্লো ঠিক থাকবে।

কী- ওয়ার্ড ডোমেনে থাকা: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষত্রে ডোমেন নামের মাঝে কী-ওয়ার্ড থাকাটা উত্তম। এক্ষেত্রে যতি আপনি Exact Match Domain (EMD) নিয়ে থাকেন, তাহলেও কোনো সমস্যা নেই।
পেজ অথরিটি: বিং সার্চ ইঞ্জিন Page Authority কে অনেক বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে। এই জন্য দেখা যায় যে, নতুন ডোমেনের থেকে বেশী বয়সের ডোমেন গুলি বিং এ ভালো র‌্যাংক পায়।

কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষেত্রেও আপনাকে কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি নিয়ম মেনে চলতে হবে। একটি নির্দ্দিষ্ট কী-ওয়ার্ডকে বার বার লিখে কী-ওয়ার্ড স্টাফিং করা যাবে না। এ ক্ষেত্রে ডেনসিটি ২-৩% পর্যন্ত রাখতে পারবেন।

তথ্য সম্বলিত কন্টেন্ট: কন্টেন্ট এর গুরুত্ব সব সার্চ ইঞ্জিন এই সমান। আপনাকে অবশ্যই সঠিক তথ্য সম্বলিত কন্টেন্ট সাইটে রাখতে হবে এবং ইউনিক কন্টেন্ট হতে হবে।

সাইট স্ট্রাকচার ও নেভিগেশন: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর গাইডলাইন মতে আপনার সাইটের সকল পেজ হোমপেজ এর কাছাকাছি থাকতে হবে অর্থাৎ ৩টি ক্লিকের মধ্যে যেন সব পেজে বা পোষ্টে যাওয়া যায়। যেমন: SEO > On-Page SEO > Heading Tag
সাধারন অন-পেজ এসইও: বিং সার্চ ইঞ্জিন এর ক্ষেত্রেও আপনাকে গুগল সার্চ ইঞ্জিন এর মত সাধারন অন-পেজ এসইও এর বিষয়গুলি যেমন: টাইটেল, হেডিং ট্যাগ, ইমেজ, মেটা ট্যাগ ইত্যাদি সঠিক ভাবে সাজাতে হবে।

আশা করছি উপড়ের আলোচনার মাধ্যমে আপনারা বুঝতে পেরেছেন যে, কিভাবে Bing Search Engine এ র‌্যাংক করতে হবে।

আমার লেখাটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। এবং আপনার মতামতের অপেক্ষায় রইলাম। কমেন্টের মাধ্যমে মতামত জানাবেন।

ধন্যবাদ সবাইকে। 

কিভাবে প্রতিরোধ করবেন করোনা ভাইরাস




করোনা ভাইরাস, সম্প্রতি চীনের উহান প্রদেশে প্রথম দেখা দেয় এই প্রাণঘাতি ভাইরাসটি। তবে যুক্তরাষ্ট্র, থাইল্যান্ড, নেপাল, তাইওয়ান, হংকং,মালয়েশিয়া সহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়েছে এই চীনা ভাইরাস। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চীনে ৮১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। পাশের দেশ ভারতেও করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। তবে বাংলাদেশে এখনো এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।
করোনা ভাইরাস সাধারণত প্রাণী থেকে প্রাণীতে ছড়ায়। তবে এখন মানুষের দেহ থেকে মানুষের দেহেও ছড়াচ্ছে। ফলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দ্রুত ছড়াচ্ছে এটি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভাইরাসটি হয়তো মানুষের দেহকোষের ভেতরে ইতোমধ্যে ‘মিউটেট করছে, অর্থাৎ গঠন পরিবর্তন করে নতুন রূপ নিচ্ছে এবং সংখ্যাবৃদ্ধি করছে। ফলে এটি আরও বেশি বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে।
করোনা ভাইরাসের লক্ষণ
বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভাইরাসটি শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে প্রায় পাঁচদিন লাগে। প্রথম লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। তারপর দেখা দেয় শুকনো কাশি। এক সপ্তাহের মধ্যে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট।
১. করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রধান লক্ষণ হলো শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া।
২. এর সঙ্গে সঙ্গে থাকে জ্বর এবং কাশি।
৩. অরগ্যান ফেইলিওর বা দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে যাওয়া।
৪. নিউমোনিয়া হতে পারে।


প্রতিরোধে যা করবেন
মানুষের দেহ থেকে মানুষের দেহে ছড়ায় বলে যে সকল স্থানে করোনা ভাইরাস দেখা দিয়েছে সেসব স্থান এড়িয়ে চলাই ভাল। নতুন এই ভাইরাসের কোন টিকা বা ভ্যাকসিন আবিস্কার হয়নি এখনো। ফলে  করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে কিছু নিয়ম মেনে চলতে পারেন। সমস্যা অনুভব করলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আপনার পরিচিত কেউ আক্রান্ত মনে হলেও দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

১. ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহার করুন।
২. গণপরিবহন এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।
৩. প্রচুর ফলের রস এবং পর্যাপ্ত পানি পান করুন।
৪. ঘরে ফিরে হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন।
৫. কিছু খাওয়া কিংবা রান্না করার আগে ভালো করে ধুয়ে নিন।
৬. ডিম কিংবা মাংস রান্নার সময় ভালো করে সেদ্ধ করুন।
৭. ময়লা কাপড় দ্রুত ধুয়ে ফেলুন।
৮. নিয়মিত থাকার ঘর এবং কাজের জায়গা পরিষ্কার করুন।
৯. সুরক্ষিত থাকতে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন।
১০. অপ্রয়োজনে ঘরের দরজাজানালা খুলে রাখবেন না।

MKRdezign

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget